কিভাবে ফেসবুকে প্রতিদিন 500 আয় করা যায়

কিভাবে ফেসবুকে প্রতিদিন 500 আয় করা যায় ?

কিভাবে ফেসবুকে প্রতিদিন আয় আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা এফিলিয়েট মার্কেটিং এবং ফেসবুক এর মাধ্যমে কিভাবে অনলাইনে প্রতিদিন ৫০০ টাকা আয় করা যাবে এই বিষয়ে জানবো।

এখনকার সময়ে সবথেকে বেশি জনপ্রিয় সোর্স অফ ইনকাম হচ্ছে এফিলিয়েট মার্কেটিং।

আর, ফেসবুকের মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটিং হল আপনার আয় বাড়ানোর দুর্দান্ত একটা কৌশল।

প্রতি মাসে প্রায় কোটি-কোটি লোক এই প্ল্যাটফর্মে আসে,

তাই এই এটি হতে পারে আপনার কাছে একজন অ্যাফিলিয়েট হিসেবে একটা সেরা টার্গেট মার্কেট।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে সাধারণ ধারণা:

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল এক ধরণের বিজ্ঞাপন পদ্ধতি।

এই ধরণের প্রোগ্রামের সহযোগিতায় কোনো কোম্পানি অন্যদের (যেমন- ব্লগারদের বা ইন্ফ্লুয়েন্সারদের) মাধ্যমে তাদের পণ্য ও পরিষেবার বিজ্ঞাপন দেওয়া ও বিক্রয় বাড়ানোর জন্যে সেই ব্যক্তিদের কমিশন দিয়ে থাকে।

অ্যাফিলিয়েটরা তাদের ওয়েবসাইট, অ্যাপ, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম কিংবা ব্লগে কোম্পানির দেওয়া পণ্য কিংবা পরিষেবার প্রচার করে থাকে।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য কিভাবে ফেসবুককে ব্যবহার করবেন ?

তবে, এর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য একটা উপায় হল কোনো বিসনেস কিংবা ইনফ্লুয়েন্সার পেজ তৈরী করা অথবা আপনার ক্লায়েন্টদের জন্য একটা ব্যক্তিগত গ্রুপ তৈরি করা।

  • একটি ফেইসবুক পেজ বা গ্রুপের সাহায্যে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স বা লক্ষ্য শ্রোতাদের কাছে পৌঁছানোটা অনেকটাই সহজ হয়।
  • তাদের মধ্যে একটা সেটআপ তৈরী করে, আপনি টার্গেটিং টুলগুলোও অ্যাক্সেস করতে পারবেন।
  • এই টুলগুলোর সাহায্যে আপনি আপনার সম্ভাব্য ক্রেতাদের শনাক্ত করে তাদের কাছে পৌঁছাতে পারবেন – যারা আপনার অফার সম্পর্কে অবশ্যভাবেই আগ্রহী থাকবে।
  • যেকোনো অ্যাফিলিয়েট বিজনেসের জন্য ফেসবুক যে দৃশ্যমানতা তৈরি করে, তা বিশাল আকারের হয়ে থাকে।
  • মূলত, এই সোশ্যাল মিডিয়া নেটওয়ার্কটি ব্র্যান্ডের আনুগত্য ও বিশ্বাসযোগ্যতা বৃদ্ধিতে চরমভাবে সাহায্য করে।
  • এই বিনামূল্য প্ল্যাটফর্মটি আপনার রেফারাল কিংবা নানান মানুষের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করার একটা জায়গা দেয়।

How to earn BDT.500/- everyday from Facebook)

১. একটা নতুন পেজ তৈরী করুন:

এই পেজটিতেই থাকে আপনার মেইন ফিড।

এখান থেকেই আপনি আপনার ছবি, ভিডিও ও কনটেন্ট দর্শকদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।

এছাড়াও, এই পেজের আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ হল- ইভেন্টস, জবস, রিভিউস এবং ইনসাইটস।

আপনার বিসনেস পেজটি ফিলআপ করার আগে, এর সাথে সর্বতোভাবে পরিচিত হওয়াটা জরুরি।

পেজের মেনু অপশনগুলো পর্যবেক্ষণ করে বিভিন্ন পেজ সেটিংস খুলে দেখুন।

ফেসবুকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার ক্ষেত্রে একটা অনুগত ফ্যান বেস তৈরী করাটাও কিন্তু একান্ত প্রয়োজনীয়।

পেজের শুরুতে আপনি কীভাবে আপনার ফলোয়ার বাড়াবেন, তার জন্যে কিছু টিপস রইলো –

  1. আপনার বন্ধুদের একটা মেসেজ পাঠান (যদি আপনি সঠিকভাবে জানেন যে, যেসব দর্শকেরা আসলেই আগ্রহী, তাদেরকেই মেসেজ পাঠাবেন)।
  2. আপনার কন্টাক্টদের একটা ইমেল পাঠান ও তাদের আপনার ব্যবসার পেজ সম্পর্কে অবগত করুন।

২. ফেসবুক পেজ দিয়ে আপনার অ্যাফিলিয়েট ব্যবসা বৃদ্ধি করুন:

– কল-টু-অ্যাকশন (CTA/Call-to-Action) বাটন যোগ করুন:

আপনার সম্ভাব্য ক্রেতাকে ক্রেতাতে পরিণত করার সেরা উপায়ের মধ্যে অন্যতম হল এই সিটিএ।

তাই, আপনার এফবি পেজে অবশ্যই একটা কল-টু-অ্যাকশন বাটন যুক্ত করুন।

আপনি আপনার পেজের ভিসিটরদের দ্বারা অবশ্যই এই কাজটি করাতে চাইবেন।

এক্ষেত্রে কল-টু-অ্যাকশনের সিরিজের মধ্যে কয়েকটাকে বেছে নিতে পারেন,

 

৩. পেজ সেটিংস বদলান:

ফেসবুকের পেজের বিভিন্ন সেকশন আপনি নিজের মতো কর কাস্টোমাইজ করতে পারেন।

বামদিকের মেইন মেনু থেকেই আপনি পেজ সেটিংস অপশনটি পেয়ে যাবেন।

এই সেটিংস মেনু থেকে আপনি আপনার বিজনেস পেজে নানান ধরণের পরিবর্তন আনতে পারেন।

অফার তৈরি করুন:

অ্যাফিলিয়েট হিসেবে ফেসবুকে নিজের পরিচিতি বাড়ানোর একটা সেরা উপায় হতে পারে আকর্ষণীয় অফার তৈরী করা, যা মানুষের নজর টানবে।

যদি আপনার অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম কোনো কুপন কোড তৈরী করে ও আপনাকে সেটা অনলাইন পাবলিশ করার অনুমতি দেয়, তাহলে এটা কিন্তু আপনাকে অনন্য অ্যাফিলিয়েট অফার তৈরী করতে সাহায্য করবে।

ঠিক পোস্টিং বক্স-এর তলায় আপনি ‘অফার’ বাটনটি পেয়ে যাবেন।

৫. ফেসবুক ইনসাইটস বুঝুন:

ফেসবুক ইনসাইটস থেকে আপনি আপনার ফেসবুক পেজের সমস্ত তথ্য দেখতে সক্ষম হবেন।

এই বিভাগে আপনি পেয়ে যাবেন ডিটেইলড অ্যানালিটিক্স, যথা- কোন পোস্টগুলো সবথেকে ভালো কাজ করবে কিংবা লোকেরা কীভাবে আপনার কন্টেন্টের সাথে ইন্টারেক্ট করবে- এই ধরণের সমস্ত বিস্তারিত তথ্য

About Newaz Ahmed

Check Also

হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস একাউন্ট খোলার নিয়ম

হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস একাউন্ট খোলার নিয়ম হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস অ্যাপ ব্যবহার করে কাস্টমার সাপোর্ট প্রদানের পাশাপাশি প্রোডাক্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published.